৫০০০ বছর আগে ভারতে আবিষ্কৃত যোগশাস্ত্র কেন বিখ্যাত বিশ্ব জুড়ে?

By: Amit Patihar

August 2, 2021

Share

যোগব্যায়াম বা যোগশাস্ত্র কী? মানুষের রোজকার জীবনে এর প্রভাবই বা কতদূর? ভারতে আবিষ্কৃত এই শাস্ত্র কেনই বা বিখ্যাত বিশ্ব জুড়ে? এরকম বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর পেতে গেলে পড়তে হবে এই আর্টিকেল। যোগব্যায়াম সাধারণত আমাদের শ্বাস প্রশ্বাস প্রক্রিয়ার বিভিন্ন ধরণের উপযোগীতার ভান্ডারের সম্মুখদ্বার। যে দ্বারের ভিতরে আছে সুস্বাস্থ্যের খনি। অনেকেই ভাবেন যোগব্যায়াম করা চারটি খানি কথা নয়, শরীরের নমনীয়তা না থাকলে যোগব্যায়াম করা যায় না ইত্যাদি। এটি আসলেই একটি ভ্রান্ত ধারণা। ৮ থেকে ৮০ বয়সের যে কেউই যোগব্যায়াম করতে পারেন এবং এর উপকারীতা পেতে পারেন।

◆যোগশাস্ত্র কী?

যোগশাস্ত্র একটা ৫০০০ বছর পুরানো ব্যায়াম শৃঙ্খলা যা কিনা ভারতবর্ষে আবিষ্কৃত। শরীরের সাথে মনের সংযোগ ঘটানোর জন্যই এই শাস্ত্র আবিষ্কার করা হয়। মানুষের মন বড়ো চঞ্চল এবং শরীর আজন্ম ভঙ্গুর। মানুষের বয়সের সাথে সাথে বাড়তে থাকে শরীর আর মনের দূরত্ব। যোগশাস্ত্রের বিভন্ন ধরণের শরণাপন্ন হয়ে মানুষ শরীর এবং মনের এই দূরত্ব কে ঘুচিয়ে দিতে পারে আমৃত্যুকাল অবধি। যোগার বিভিন্ন ধরণগুলির মধ্যে কিছু কিছু ধরণ খুবই শক্ত, শরীরের নমনীয়তা না থাকলে এই ধরণগুলি রোজকার জীবনের অংশ করতে চাওয়া খুবই কঠিন। আবার যোগার অন্য ধরণগুলো খুব শান্তিপ্রদায়ক, সহজ, যা মেডিটেশনের জন্য উপযোগী।

◆যোগব্যায়ামের উপযোগীতা:

যোগ ব্যায়াম আমাদের শক্তির বৃদ্ধি ঘটায়, শরীর কে নমনীয় করে তোলে, মানসিক শান্তির বৃদ্ধি ঘটায়, মন কে শান্ত করে তোলে, রাগ ক্ষোভ উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও শরীরে বাসা বাঁধা বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। যেমন –

● শরীরের রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে।

● আর্থরিটিস (Arthritis) দূর করে।

● কোমরের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দেয়।

● উচ্চ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

● শ্বাসকষ্ট দূর করে।

● টেনশন, স্ট্রেস দূর করে।

● মাথা যন্ত্রণার হাত থেকে মুক্তি দেয়।

● বিষাদ বা ডিপ্রেশন দূর করে।

 

শুধু অসুস্থ্য মানুষেরই নন, যোগশাস্ত্র সুস্থ্য মানুষদের ক্ষেত্রেও সমান ভাবে উপযোগী। কীভাবে? জেনে নেওয়া যাক।

● যোগ শাস্ত্রের বিভিন্ন ব্যায়ামের মাধ্যমে মানুষের শরীরের বিভিন্ন অংশের মাংসপেশীর শক্তি বৃদ্ধি ঘটে। যার ফলে ভবিষ্যতে যে কোনও ধরণের চোট বা আঘাত পাওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

● যে কোনও সুস্থ্য মানুষের জীবনের অন্যতম শত্রু হলো স্ট্রেস বা চাপ। নিয়মিত যোগার মাধ্যমে মানুষ স্ট্রেস রিলিজ করতে সক্ষম হয়।

● স্ট্যামিনা এবং দৈহিক শক্তির বৃদ্ধি ঘটে।

● মনোসংযোগ বৃদ্ধি পায়।

● শরীরের সাথে মনের সংযোগ ঘটে। মানুষ নিজের অবাধ্য মনকে নিজের নিয়ন্ত্রণে আনতে শেখে।

 

◆ যোগার বিভিন্ন ধরণ:

আগেই উল্লেখ করেছি যোগ ব্যায়ামের বিভিন্ন ধরণ আছে, মানুষ তার শরীর এবং পছন্দ বুঝে যোগব্যায়ামের যে কোনও ধরণ শুরু করতে পারেন। বিভিন্ন ধরণগুলির মধ্যে কিছু কিছু ধরণ আমি তুলে ধরলাম –

● Kripalu Yoga – খুবই ধীর স্থির ব্যায়াম প্রণালিগুলো এই ধরণের অন্তর্গত। যাদের শরীরের ফ্লেক্সিবিলিটি কম, তারা এই ধরণের মাধ্যমে যোগ ব্যায়ামের উপযোগীতা পেতে পারেন।

● Restroactive Yoga – কোনও দৈহিক পরিশ্রম যুক্ত ব্যায়াম নেই এই প্রণালীতে। এই প্রণালী শরীরের রিলাক্সশেসনের ওপর জোর দেয়।

● Hatha Yoga – নিশ্বাস প্রশ্বাসের বিভিন্ন ধরণ বা প্রাণায়ম শেখা যায় এই প্রণালীতে। দেশ বিদেশ জুড়ে বহুল প্রচলিত এটি।

● Bikram Yoga – একটা গরম ঘরের ভিতরে এই প্রণালীর অন্তর্গত ব্যায়াম গুলো করতে হয়। প্রায় ২৬ ধরণের ব্যায়াম আছে এই প্রণালী তে।

● Asthanga Yoga – দৈহিক শক্তির বৃদ্ধি ঘটে এই যোগার মাধ্যমে।

● Iyengar Yoga – শরীরের এলাইনমেন্টের ওপর বেশি জোর দেওয়া হয় এই প্রণালীতে।

 

◆ যোগব্যায়াম কীভাবে শুরু করবেন?

যোগব্যায়াম শেখা এখন ভীষণই সহজলভ্য। লোকাল হেল্থ কমিউনিটি বা জিম সেন্টার বা ড্যান্স স্টুডিও বা হেল্থ ক্লাবের সাথে যোগাযোগ করলেই পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য পাবেন। এ ছাড়াও ইন্টারনেট ইউটিউব yoga journal এর বিভিন্ন আর্টিকেল থেকে জেনে নিতে পারেন কোথায় যোগ ব্যায়াম শেখানো হয়। যোগ ব্যায়াম শুরু করার আগে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি আগে বুঝুন কোন যোগ ব্যায়াম প্রণালী আপনার জন্য সঠিক। সেটা আপনাকে বুঝিয়ে দেবে আপনার যোগা শিক্ষক। নিজের ডাক্তারের সাথে আগে কথা বলুন, জানতে চান আপনি যোগা শুরু করতে পারেন কিনা। নিজের যোগা শিক্ষক কে নিজের শারীরিক অবস্থান সম্পর্কে সচেতন করুন অবশ্যই। যাতে আপনি আপনার জন্য সঠিক ধরণটি পেতে পারেন এবং যোগ শাস্ত্রের যে উপযোগীতা তার স্বাদ পেতে পারেন।

 

■ একবার চেষ্টা করেই দেখুন:

যোগ ব্যায়ামের উপযোগীতা গুলো একবার আহরণ করেই দেখুন। স্ট্রেস, চিন্তা, টেনশন, ঝেড়ে ফেলেই দেখুন। ৪০ বছর বয়সে আবার নিজের বছর ১৬ এর ভার্সনে একবার ফেরত গিয়েই দেখুন। মনের সাথে মস্তিষ্কের যুদ্ধে একবার না হয় নিয়ন্ত্রণের দড়িটা হাতে রেখেই দেখুন।

যোগ ব্যায়াম আসলে নিজের ওপর নিজের নিয়ন্ত্রণ না হারানোর শাস্ত্র। তা সে শরীরের জরা ব্যাধি হোক, বা মনের। একবার নিজের আত্মার মালিক নিজে হয়েই দেখুন।

Source :

  • https://m.timesofindia.com/life-style/health-fitness/fitness/why-yoga-should-be-part-of-your-daily-life/articleshow/29860273.cms
  • https://www.yogabliss.co.uk/Top-10-Benefits-of-Practicing-Yoga
  • https://www.urmc.rochester.edu

More Articles